শখের তরকারিতে লবণ বা ঝাল বেশি হয়ে গেছে? জেনে নিন আপনার করণীয়

নিশ্চয়ই জানেন, রান্না একটি শিল্প। তবে নানা অসতর্কতার কারণে রান্নায় একটু হেরফের হয়েই যায়। দেখা যায় তরকারিতে মাঝে মধ্যে লবণ কিংবা ঝাল বেশি হয়ে যায়। তখন সেই খাবার আর খাওয়ার মতো থাকে না। তাই অনেকেই তা ফেলে দেন।

তবে এমন একটি কৌশল রয়েছে যা আপনার এই খারাপ রান্নাকে মিনিটেই সুস্বাদু করে দেবে। আর আপনি সেই খাবার ফেলে দেয়ার পরিবর্তে বেশ মজা করেই খেতে পারবে। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক সেই কৌশলটি-

> তরকারিতে খুব বেশি লবণ বা ঝাল দিয়ে ফেললে চিন্তার কিছু নেই। ওই রান্নায় সামান্য দুধ দিয়ে দিন। সঙ্গে সামান্য চিনি। তারপর ঢাকা দিয়ে অল্প আঁচে রাখুন। অতিরিক্ত লবণ ও ঝাল দুটোই কমে যাবে। মাংস রান্নায়ও এই পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারেন।

> এছাড়া সামান্য লেবুর রস কিংবা সিরকা দিলেও লবণ বা ঝাল কমে যাবে।

> অন্য একটি উপায় হচ্ছে, আটা বা ময়দা গুলে নেয়া। এবার সেই আটা বা ময়দার একটি গোলা তরকারিতে দিয়ে দেয়া। তাতে লবণ ও ঝাল অনেকটাই কমে যাবে। রান্না শেষে গোলাটি তুলে ফেলে দিতে ভুলবেন না।

রান্নার আরও কিছু ভুল শুধরে নেয়ার সহজ উপায় শিখে নিনঃ

রান্না মোটামুটি ভালোই পারে তানিয়া। সমস্যা হয় কারও জন্য আয়োজন করে রান্না করতে গেলে। কেন জানি তখন হয় মশলা বেশি হয়, না হয় তরকারি পুড়ে যায়। রান্না নিয়ে কম বেশি সমস্যায় পড়েন অনেকেই। হয়তো কেউ কেউ শোনেন কটু বাক্য। পরিবারের মানুষগুলো মুখের ওপরই বলে দেয়, ‘তোমার রান্না মজা হয় না।’

ছোটোখাটো কিছু উপায় রয়েছে, যেগুলো কাজে লাগানোর মাধ্যমে রান্নার দোষ-ত্রুটিগুলো দূর করা সম্ভব হয়। এই উপায়গুলোর মাধ্যমে রান্নাকে করে তুলতে পারেন মজাদার।

ঠিকঠাক মতোই মাংস রান্না করেছেন। কিন্তু ঝোল পাতলা হয়ে গেছে। কিংবা হতে পারে মশলা ঠিকমতো কষানো হয়নি বলে কাঁচা মশলার গন্ধ আসছে। আবার অনেক সময় মশলা পুড়ে গিয়ে তেতো হয়েও যেতে পারে। এই সব সমস্যা সমাধান রয়েছে একটি কাজে। কিছুটা পেঁয়াজ বেরেস্তা করে নিন। বেরেস্তা করার সময় তাতে দিয়ে দিন আস্ত গরম মশলা। এবার এই বেরেস্তা রান্নায় দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ফেলুন। চুলার আঁচ কমিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট রেখে দিন। স্বাদ বাড়বে অনেকটাই।

মাংস কিংবা অন্য তরকারিতে ভুল করে বেশি লবণ বা ঝাল দিয়ে দিয়েছেন? সেই খাবার কি মুখে তোলার অযোগ্য হয়ে গেছে? রান্নায় মেশান দুধ, সেসঙ্গে সামান্য চিনি। এরপর ঢাকনা দিয়ে কিছুক্ষণ অল্প আঁচে রাখুন। অতিরিক্ত লবণ ও ঝাল দুটোই কমবে।

কাবাবজাতীয় খাবার বেশি পুড়ে গেলে কিংবা তাতে অতিরিক্ত মশলা হয়ে গেলে সঙ্গে রাখুন একটি বিশেষ রায়তা। টক দই, চিনি, সামান্য লবণ, চাট মসলা, মিহি ধনেপাতা ও পুদিনাপাতা কুচি আর সরিষার তেল একসঙ্গে ফেটিয়ে নিন। কাবাবজাতীয় খাবারের সব ত্রুটি ঢেকে দিবে এটি।

আলুর চপ কিংবা পরোটার স্বাদ খুব একটা ভালো হয়নি? মনে হচ্ছে মশলা কম দিয়েছেন? ওপরে ছড়িয়ে দিন পছন্দমতো কোনো চাট মশলা। এতে তেলে ভাজা যে কোনো খাবার হয়ে উঠবে সুস্বাদু।

ফ্রায়েড রাইস কিংবা পোলাও বেশি নরম হয়ে গেলে তা ঝরঝরে করার জন্য একটি ছড়ানো পাত্রে খাবার ঢেলে ফ্যানের নিচে শুকাতে দিন। খুব ভালো করে ঠান্ডা হয়ে গেলে তা অনেকটা ঝরঝরে হয়ে আসবে। তখন আবার কড়াইতে নিয়ে গরম করে নিন। ব্যস, ঝরঝরে ফ্রায়েড রাইস প্রস্তুত।

রান্না করতে গিয়ে ভুল হতেই পারে। সেই ভুলগুলো শুধরে নিন ছোটোখাটো এসব উপায়ে।

৫০০০+ মজদার রেসিপির জন্য Google Play store থেকে Install করুন “Bangla Recipes” মোবাইল app…. 🙂
.
মোবাইল app Download Link >>> https://bit.ly/2YsK4MO

Loading...