রান্নার ঘরের বাসন মাজার সাবানই ডেকে আনছে মারাত্মক বিপদ, সতর্ক হোন

আধুনিক লাইফস্টাইলে অনেকে খাওয়া ও ঘুমের সময়ও ঠিক মতো পান না। কেউ কেউ কর্মব্যস্ত দৌড়ের জীবনে আছেন, আবার কেউ কেউ কেরিয়ার গড়ার পেছনে ব্যস্ত থাকেন। তাই এদের কাছে গুছিয়ে রান্না করা একটা বিলাসিতা। যেটুকু সম্ভব হয় তাতেই হয়তো এদের চলে যায়। কিন্তু মুশকিল হলো রান্নাবান্না ও খাবারদাবারের পরের প্রক্রিয়াটি।

খাওয়ার আগে বা পরে বাসন মাজার কথা তো ভাবতেই পারেন না এ প্রজন্মের মহিলারা। যদি কোন অন্য উপায় না থাকে তবে বাধ্য হয়েই হাত লাগাতে হয়। তখন এদের একমাত্র ভরসা হয়ে উঠে লিকুইড ডিশ ওয়াশ। এছাড়া তেল চিটচিটে বাসন কিংবা পুড়ে যাওয়া কড়াইর দাগ তুলতে সবারই এখন ভরসা বাসন মাজার এই সাবান। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিপদ এখানেই। বাসন মাজার সাবানের কেমিক্যাল ডেকে আনছে ক্ষতি।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাসন মাজার সাবানে থাকে প্রচুর ক্ষতিকর রাসায়নিক। এই সাবানে ধোয়া বাসনে দীর্ঘদিন খেতে থাকলে বিপদ। বিশেষ করে যাদের অ্যালার্জি এবং র‍্যাশের সমস্যা আছে, তা বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি।

অনেক রাসায়নিক চামড়ায় মিশে যায়। সেখান থেকে সরাসরি চলে যায় রক্তে। এভাবে আস্তে আস্তে শরীরে জমতে থাকে দূষিত পদার্থ। এ থেকে চামড়ার অসুখ, ঘুম ঘুম ভাব, মাথার যন্ত্রণা, ক্যান্সারের সম্ভাবনা বেড়ে যেতে পারে বলে দাবি বিশেষজ্ঞদের। এছাড়া হার্টের সমস্যা, ফুসফুসের সংক্রমণ, চোখের সমস্যাও হতে পারে ডিশ ওয়াশ সাবান থেকে।

আরও পড়ুনঃ বাসন মাজলে করোনা ভাইরাস মরে?

জিম বন্ধ। বন্ধ সেলেবদের শরীরচর্চা। তা বলে থেমে নেই তারকারা। বেছে নিয়েছেন অন্য উপায়। হাত লাগিয়েছেন বাসন মাজায়! কে নেই এই তালিকায়— ক্যাটরিনা থেকে কার্তিক আরিয়ান সকলেই মাজছেন বাসন। গৃহস্থালির এত কাজ থাকতে হঠাত্ কেন বাসন মাজা-মাজি? আসলে সকালের জলখাবার থেকে শুরু করে রাতের খাওয়া পর্যন্ত লাগে থালা-বাটি, গ্লাস। বাসন নেহাত কম হয় না! আর বাসন মাজতে যথেষ্ট ক্যালরি খরচ হয়! বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, সারা দিনে মিনিট পনেরো সময় ব্যয় করে বাসন মাজলেও ১০৫ ক্যালরি ঝরে! এ তো গেল শরীরচর্চার গল্প। এই করোনার আবহে বাসন মাজার পিছনে রয়েছে অন্য এক উপকারও।

এখনও পর্যন্ত করোনা ভাইরাসের কোনও টিকা বা নির্দিষ্ট ওষুধ আবিষ্কার হয়নি। তাই আগাম সতর্কতা আর পরিচ্ছন্নতার ওপরেই ভরসা রাখছেন চিকিত্সক, বিশেষজ্ঞ থেকে আমজনতা। করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে সতর্কতা আর পরিচ্ছন্নতাই হল একমাত্র উপায়। আর সেই জন্যই বাড়িতে থাকলেও ঘণ্টায়-ঘণ্টায় সাবান দিয়ে হাত ধুতে বলছেন চিকিৎসকরা।

বার বার সাবান দিয়ে হাত ধোওয়ার মধ্যেই লুকিয়ে আছে করোনার সংক্রমণ এড়ানোর উপায়। কোভিড-১৯ জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রয়েছে হাতের। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, কোভিড ১৯-এ আক্রান্ত ব্যক্তির হাঁচি, কাশি বা সর্দির মাধ্যমে এই ভাইরাস ছড়ায়। রোগীর হাঁচি বা কাশি হয় তখন ড্রপলেট (সরলভাবে বলা যায় সূক্ষ্ম জলবিন্দু) নির্গত হয় সংক্রামিতের দেহ থেকে। এই ড্রপলেটের মধ্যে থাকে অসংখ্য ভাইরাস। কোনওভাবে তা অন্য কোনও সুস্থ ব্যক্তির হাতে লেগে গেলেই মুশকিল। এরপর ওই সুস্থ ব্যক্তি নাকে, চোখে বা মুখে হাত দিলেই ড্রপলেটের মাধ্যমে তার শরীরেও ঢুকে পরে এই মারণ ভাইরাসটি।

প্রশ্ন হল সাবান দিয়ে হাত ধোওয়ার সঙ্গে কিন্তু ভাইরাসের সংক্রমণ এড়ানোর সম্পর্ক কোথায়?

বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, করোনা ভাইরাসের শরীর অনেকটা গোলাকার বলের মতো। এই বলের গা ফ্যাট দিয়ে মোড়া। ফ্যাটের স্তরের ওপরে থাকে প্রোটিনে তৈরি স্পাইকের খোঁচা খোঁচা অংশ। এই স্পাইকগুলির সাহায্যেই ভাইরাস হাতে আটকে থাকে। এমনকী ওই স্পাইক বা হুকগুলির জন্যই শরীরের কোথাও যেমন হাতে ভাইরাস আটকে গেলে সহজে তাকে জল দিয়ে ধুয়ে দূর করা সম্ভব হয় না।

তবে সাবান দিয়ে হাত ধুলে, সাবানে থাকা ক্ষার ভাইরাসের গায়ের চর্বির স্তর গলিয়ে দেয়। এক্ষেত্রে অন্তত টানা ২০ সেকেন্ড ধরে সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার করতে হয় যাতে করে প্রচুর ফেনা তৈরি হতে পারে। এর ফলে ভাইরাসের ওপরের চর্বির স্তর ভেঙে গিয়ে পুরোপুরি অকেজো হয়ে যায়।

এই কারণেই সেলেব থেকে সাধারণ মানুষ অনেকেই তাই বারবার বাসন মেজে হাত পরিষ্কার রাখতে চাইছেন। তাঁদের যুক্তি, বাসন মাজার ডিটারজেন্টেও ক্ষারের পরিমাণ থাকে যথেষ্ট। সেক্ষেত্রে বারবার বাসন মাজলে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে তা জবরদস্ত প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা হয়ে উঠতে পারে। সত্যিই কি তাই? বিশেষজ্ঞদেরর মত কী?

এসএসকেএম হাসপাতালের ক্রিটিকাল কেয়ার মেডিসিন বিভাগের অ্যাসিস্টেন্ট প্রফেসর ডাঃ মনোতোষ সূত্রধর জানালেন, ‘বাসন মাজার সাবানে থাকা ক্ষার ভাইরাসের গায়ের চর্বির স্তরকে গলিয়ে দিতে পারে। তবে তার জন্য কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড হাতে সাবান লাগানো অবস্থায় থাকতে হবে।’ ডাঃ সূত্রধর আরও জানান, ভারতে এখনও কমিউনিটি স্প্রেডিং হচ্ছে। তাই বাড়তি সতর্কতার জন্য বাসন মাজার পর অবশ্যই কোনও সোপ বা ৭০ শতাংশ অ্যালকোহল নির্ভর স্যানেটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করে নেওয়াটাও সমানভাবে জরুরি।

৫০০০+ মজদার রেসিপির জন্য Google Play store থেকে Install করুন “Bangla Recipes” মোবাইল app…. 🙂
.
মোবাইল app Download Link >>> https://bit.ly/2YsK4MO

Loading...