ঘন ঘন ওয়েট টিস্যু ব্যবহার ক্যানসার, বন্ধ্যাত্বের মতো মরণব্যাধী রোগের সৃষ্টি করে-দাবী গবেষকদের, পড়ুন বিস্তারিত

তীব্র গরমে ঘামে শরীর একাকার। ট্রেনে কিংবা বাসে অনেক সময় ঘামে ভেজা জামাকাপড় পড়েই যাতায়াত করতে হয়। অস্বস্তি এড়াতে অনেকেই ব্যাগে রাখেন ওয়েট টিস্যু। ঘামের দুর্গন্ধ থেকে বাঁচতে হোক বা মুখ পরিচ্ছন্ন রাখতে, একটু ঠান্ডার পরশ পেতে এমন সুগন্ধি টিস্যুতেই ভরসা অনেকের।

শুধু ঘাম থেকে বাঁচতেই নয়, অনেকে মেকআপ তুলতেও ওয়েট টিস্যু ব্যবহার করেন। এতে মুখ তার প্রয়োজনীয় আর্দ্রতা হারায় না। মেক আপের রাসায়নিকের ফলে ত্বকের যেটুকু ক্ষতি হয়, ওয়েট টিস্যু সেই ক্ষতিতেও কিছুটা প্রলেপ দিতে পারে বলে অনেকেই ভেবে থাকি। ভেজা টিস্যুর ঠান্ডা পরশে মুখের ত্বকও আরাম পায়।

কিন্তু এই ওয়েট টিস্যু নিজের অজান্তে ক্ষতি করছে আপনার। চিকিৎসকরা এই ওয়েট টিস্যুর নাম শুনলেই আঁতকে উঠছেন। ওয়েট টিস্যুকে রীতিমতো ঘাতক বলে চিহ্নিত করছেন গবেষকরা।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির গবেষক জন কুক মিলসের গবেষণায় উঠে এসেছে এমনই কিছু তথ্য।

তিনি বলেন, ওয়েট টিস্যু ব্যবহার করলে শিশুদের অ্যালার্জির সমস্যা কয়েকগুণ বেড়ে যায়। এর মূল কারণ হচ্ছে এই বস্তুটির মধ্যে থাকা সোডিয়াম লরিল সালফেট। এটি শিশুর ও বয়স্কদের স্পর্শকাতর ত্বকের জন্যে খুবই ক্ষতিকর।

শুধু শিশু বা বয়স্কতেই নিস্তার নেই। ওয়েট টিস্যুর মধ্যে থাকা আর এক রাসায়নিক মিথাইল ক্লোরিসেথিয়া জোলাইন বড়দের ত্বকের জন্যও ক্ষতিকর।

আরো একটি বিষয়ে সতর্ক করছেন পরিবেশবিদরা। ওয়েট টিস্যুর প্রধান উপাদান হলো প্লাস্টিক। অর্থাৎ ওয়েট টিস্যু কখনও নষ্ট হবে না বরং তার উপস্থিতি পানিতে মিশে জলজ প্রাণীদের প্রভূত ক্ষতি করবে। ত্বকে প্লাস্টিকের প্রভাব যে কত ক্ষতিকর, তা নিয়েও সাবধান করছেন বিজ্ঞানীরা।

গবেষকরা বলছেন, ঘন ঘন ওয়েট টিস্যু ব্যবহার করলে এর প্লাস্টিক ও রাসায়নিক ধীরে ধীরে শরীরের নানা কোষে জমতে থাকে। ফলে ক্যানসার, বন্ধ্যাত্বের মতো মরণব্যাধী রোগও ডেকে আনতে পারে এই বস্তুটি। কাজেই অভ্যাসে পরিবর্তন না আনলে অনেক বড় ক্ষতি হতে পারে।

ত্বকবিশেষজ্ঞ সঞ্জয় ঘোষের মতে, প্লাস্টিক ব্যবহার করা হয়, এমন সব প্রসাধনী থেকেই দূরে থাকতে হবে। ওয়েট টিস্যুর ভেজা ভাব ধরে রাখতে তাতে যে সব রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়, তাও অত্যন্ত ক্ষতিকর ত্বকের পক্ষে। এ ছাড়াও আরো একটি সমস্যার কথাও তিনি বলেন।

ওয়েট টিস্যু ব্যবহারের পর অনেকে প্রায়শই কোমডে ফেলে ফ্লাশ করেন। অবিলম্বে এই অভ্যাস ত্যাগ করা উচিত। ওয়েট টিস্যুর প্লাস্টিক ও কাগজের মণ্ড নিকাশি ব্যবস্থাকে বিপদে ফেলে।

চিকিৎসকদের মতে, সাধারণ রুমাল পানিতে ভিজিয়ে বার বার মুখ মুছা যায়। এতে গরমের কষ্ট থেকে মুক্ত থাকবেন। আর মেকআপ তোলার ক্ষেত্রেও পেট্রোলিয়াম জেলি ও ভেজা রুমাল ব্যবহার করুন।

গবেষকরা বলছেন মুখ ধোয়ার পুরনো পদ্ধতিই সেরা। স্রেফ সাবান-পানি ব্যবহার করা বা ত্বকবিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়ে কোনো ফেস ওয়াশ ব্যবহার করা অনেক বেশি নির্ভরযোগ্য ও নিরাপদ।

৫০০০+ মজদার রেসিপির জন্য Google Play store থেকে Install করুন “Bangla Recipes” মোবাইল app…. 🙂
.
মোবাইল app Download Link >>> https://bit.ly/2YsK4MO

Loading...